একজন গোলাম রাব্বানী। অতঃপর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আদর্শ বাস্তবায়নে দুরন্ত ছুটে চলা-

ছাত্রনেতা শাহাদাত আহমেদ: বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম সম্মেলনের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষনার মাধ্যমে ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব গ্রহন করেন গোলাম রাব্বানী ভাই। আগষ্টের শুরুতে দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে তিনি বসে নেই। সবেমাত্র নিজের মাকে হারিয়ে গুছিয়ে না উঠতে পারা ছেলেটির কাধে চেপে বসে বিশাল দায়িত্ব। অনেকের ধারনা ছিলো গোলাম রাব্বানী পারবে তো তার উপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে। কারন কিছু অসাধুচক্র সবসময় গোলাম রাব্বানী ভাইয়ের পিছনে লেগে ছিলো। সে যেন সফল না হতে পারে। যাই হউক রতনে রত্ন চিনে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ঠিকই রত্ন চিনে নিয়েছেন। আগষ্টের ঠিক আগমূহুর্তে দায়িত্ব পাবার পর থেকে দেশে ছাত্র আন্দোলনের নামে যে গুজব বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছিলো গোলাম রাব্বানী ভাইয়ের নেতৃত্বে বাংলাদেশ  ছাত্রলীগ তা অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে, কোনরকম অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটিয়ে তা দমন করে। শুধু তাই নয় ছাত্র আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামাতের ধ্বংসযজ্ঞ, ঘৃন্য অপকর্ম ও  হত্যাকান্ড, ধর্ষনের গুজবের বিরুদ্ধে তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রশংসনীয় জবাব দিয়েছে। সারাদেশে এতো তীব্র্র আন্দোলন হওয়া সত্বেও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কাউকে একটু আচরও দেয়নি। বরং শিক্ষার্থীদের পাশে থেকে তাদের যুক্তিসঙ্গত আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছে। গোলাম রাব্বানী ভাই  ছুটে গেছেন নিহত শিক্ষার্থীদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে। সারাদেশে এতোবড়ো আন্দোলনকে স্থিমিত করতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক
গোলাম রাব্বানী ভাইয়ের ভূমিকা ছিলো অত্যন্ত প্রশংসনীয়। দায়িত্ব পাবার পর থেকে ছাত্রলীগের প্রতিটি ইউনিটের মধ্যে
সমন্বয় সাধন ও প্রতিটি ইউনিটকে সুসমন্বয় করেন। শোকের মাসে একটানা অনেক কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তবুও থেমে যাননি অসুস্থ শরীর নিয়েও ছুটে চলেছেন।  তিনি অত্যন্ত পরিশ্রমী আর পরিশ্রম করতে ভালোবাসেন। আগষ্টে দায়িত্ব নিয়েছেন তাই শোকের মাসে তিনি কারও ফুলের শুভেচ্ছাও নেননি আর কাউকে কোন আনন্দ মিছিলও করতে দেননি। তিনি ছাত্রলীগকে আদর্শিক মাপকাঠিতে দাড় করান। তিনিই প্রথম বলেছেন ছাত্রলীগে কোন ভাইলীগ থাকবেনা। একজন গোলাম রাব্বানী তাকে সবাই আমরা মানবতার ফেরিওয়ালা  হিসেবেই চিনেছি। গরীব,দুখি, অসহায়ের প্রতি তার ভালোবাসা অত্যন্ত প্রবল।সর্বশেষ আমরা ঈদুল আযহার আগ মূহুর্তে দেখতে পেলাম তিনি পথশিশুদের মুখে হাসি ফুঁটালেন ঈদ সামগ্রী বিতরণের মাধ্যমে। একজন গোলাম রাব্বানী জননেত্রী শেখ হাসিনার আদর্শের সৈনিক।তাকে দিয়েই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের হারানো ঐতিহ্য পুনরুদ্ধার ও পুনরুজ্জীবিত হবে। যোগ্য নেতৃত্ব হউক বিকশিত। এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক  গোলাম রাব্বানী ভাই সেই প্রত্যাশাই করি।

শেয়ার করুন