কুলাউড়া উপজেলা নির্বাচনে যত ভোট পেলেন প্রার্থীরা

শাকির আহমদ :: কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক একেএম সফি আহমদ সলমান। এছাড়াও ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে টানা দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান কাজী ফজলুল হক খান সাহেদ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ফাতেহা ফেরদৌস চৌধুরী পপি।

সোমবার (১৮ মার্চ) দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে কুলাউড়ায় সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে প্রশাসনের সরব ভূমিকায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। তবে তুলনামূলকভাবে ভোটারের সংখ্যা অনেক কম ছিলো।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কাদিপুর ইউনিয়নের সাবেক তিনবারের চেয়ারম্যান একেএম সফি আহমদ সলমান আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী হিসেবে আনারস প্রতীকে ৫৪ হাজার ৫২৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান আসম কামরুল ইসলাম পেয়েছেন ২৪ হাজার ১৬৯ ভোট। এছাড়াও আরেক প্রতিদ্বন্দ্বি স্বতন্ত্র প্রার্থী পৃথিমপাশা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান নবাব আলী নকী খান দোয়াত কলম প্রতীকে পেয়েছেন ১৯ হাজার ০১২ ভোট।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে কুলাউড়া উপজেলা আঞ্জুমানে আল-ইসলাহ’র সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. ফজলুল হক খান সাহেদ বই প্রতীকে ৩৫ হাজার ৭২৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি উপজেলা শ্রমীকলীগের সাধারণ সম্পাদক আহবাব হোসেন রাসেল টিউবওয়েল প্রতীকে পেয়েছেন ২১ হাজার ১৪৮ ভোট।

এছাড়াও প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের মধ্যে লংলা চা-বাগানের রাজ কুমার কালওয়ার চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ১৫ হাজার ৭৪৫ ভোট, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও কুলাউড়া পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরবিন্দু ঘোষ বিন্দু তালা প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৪৯৩ ভোট, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মান্না মাইক প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৯৬০ ভোট, কুলাউড়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলার মো. মতিউর রহমান মতই উড়োজাহাজ প্রতীকে পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৪৭ ভোট, শরীফপুর ইউনিয়নের লালারচকের আব্দুল আহাদ টিয়া পাখি প্রতীকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৯৩১ ভোট ও শাবিপ্রবি এর ছাত্র হুমায়ুন কবির শাহান পালকি প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ২২৬ ভোট।

উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ফাতেহা ফেরদৌস চৌধুরী পপি হাঁস প্রতীকে ৪৪ হাজার ৮০৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি কুলাউড়া পৌর জাসদ সভাপতি ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান নারীনেত্রী নেহার বেগম ফুটবল প্রতীকে পেয়েছেন ৪১ হাজার ৮৩৭ ভোট। এছাড়াও আরেক প্রতিদ্বন্দ্বি মোছা. শাহানা আক্তার কলস প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৭৪২ ভোট।

উল্লেখ্য, সারাদেশের আলোচিত নির্বাচনী এলাকা হিসেবে পরিচিত কুলাউড়া উপজেলা। দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপিসহ বিভিন্ন দল উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে না। এতে সারাদেশের ন্যায় কুলাউড়া উপজেলায় ভোটার সংখ্যা কম ছিলো। সারাদিনে মোট ৯৭টি কেন্দ্রে মোট ২ লক্ষ ৪১ হাজার ১৮২ ভোটারের মধ্যে ভোট প্রদান করেছেন ১ লক্ষ ১৮১ জন ভোটার।

শেয়ার করুন