এগিয়ে যাচ্ছেন কমলগঞ্জের কৃতি সন্তান গোলাম সরওয়ার মকবুল

মাহমুদুল হাসান রুমনঃ

কমলগঞ্জের কৃতি সন্তান গোলাম সরওয়ার মকবুল এগিয়ে যাচ্ছেন পুর্বসুরীদের অনুসরন করে যার পিতা আধুনিক কমলগঞ্জের অন্যতম এক রূপকার।

গোলাম সরওয়ার মকবুল সালামের জন্ম ১৯৮২সালে। পিতার নাম মৌলভী মকবুল আলী আর মাতা হচ্ছেন হাসনা খানম চৌধুরী। তাঁর পিতামহের নাম হচ্ছে মৌলভী সফাত আলী যার নামে পাকিস্তান শাসনামলে ভানুগাছে দক্ষিণ সিলেটের সর্বোচ্চ ইসলামী বিদ্যাপীঠ সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠিত হয়। জনাব সালাম কমলগঞ্জ হাই স্কুল থেকে এস এস সি এবং সিলেট সরকারি কলেজ থেকে এইস এস সি ও গ্রেজুয়েশন সম্পন্ন করেন। ২০০৫ সালে জনাব সালাম বিলেতে এসে বিজনেস মেনেজমেন্ট ও বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশনের উপর পড়াশুনা করে বর্তমানে তিনি রয়েল ব্যাংক অব স্কটল্যান্ডের সিকিউরিটি বিভাগে কর্মরত আছেন।

সালামের পিতা মৌলভী মকবুল আলী সাহেব ছিলেন একাধারে ধনাঢ্য ,শিক্ষানুরাগী ,দানবীর ও রাজনীতিবিদ।কমলগঞ্জ এলাকার উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রায়ই নয় সমগ্র দক্ষিণ সিলেটে মৌলভী মকবুল আলী ও তাঁর সহোদর সাবেক পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ সদস্য মৌলভী কেরামত আলী সাহেবের দান ও অনুদান কিংবদন্তি হয়ে আছে। জনাব গোলাম সরওয়ার মকবুল সালামের পিতা মৌলভী মকবুল আলী সাহেব কমলগঞ্জ হাই স্কুলের সাথে অতপ্রোত ভাবে জড়িত ছিলেন। দীর্ঘ দিন তিনি স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সেক্রেটারীর দায়িত্ব পালন করেন। কমলগঞ্জ হাই স্কুলের উন্নয়ন ও ছাত্র /ছাত্রীদের খেলাধুলার সুযোগ সৃষ্টিকল্পে মকবুল আলী সাহেব সাড়ে আট বিঘা জমি দান করে প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হন। ষোল বিঘা জমির উপর প্রতিষ্ঠিত কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স যার পুরোটাই মকবুল আলীর দানকৃত সম্পত্তি।

কমলগঞ্জ উপজেলা কমপ্লেক্সের বেশির ভাগ জমিই তাঁর দানকৃত এমনকি নিজ বাড়ি সম্মুখস্থ কমলগঞ্জ পৌরভবন যেটি পূর্বে ইউনিয়ন ভবন হিসাবে পরিচিত ছিলো এটি মকবুল আলীর দানকৃত ভূমির উপরই প্রতিষ্ঠিত। জনাব সালামের ভাইয়েরা সম্মিলিত ভাবে বাবা দানবীর মৌলভী মকবুল আলী সাহেবের নামে ভানুগাছে প্রতিষ্ঠা করেছেন মকবুল আলী সড়ক এবং মকবুল আলী হাই স্কুল। সালামের মাতা হাসনা খানম চৌধুরী মকবুল আলী হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা । সালামের নয় ভাই ও চার বোনের মধ্যে বড় ভাই বজলুর রহমান একজন সাবেক রাজনীতিবিদ ও সমাজকর্মী, গোলাম কিবরিয়া শফি দীর্ঘদিন কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন, বর্তমানে পৌর বণিক সমিতির সভাপতির দায়িত্বে আছেন। অন্য আরেক ভাই গোলাম মুগ্নি মুহিত কমলগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলার। সবার ছোট গোলাম রব্বানী তৈমুর বিশিষ্ট কমিউনিটি একটিভিস্ট, শিক্ষানুরাগী ও রাজনীতিবিদ। সালামের চাচাতো ভাই জনাব মুহিবুর রহমান চেরাগ মিয়া ছিলেন সাবেক পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ সদস্য, কমলগঞ্জ সদর ইউনিয়নের দীর্ঘকালীন চেয়ারম্যান, কমলগঞ্জ উপজেলার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও কমলগঞ্জ পৌরসভার আজীবন চেয়ারম্যান। জনাব গোলাম সরওয়ার মকবুল সালাম বাবা ও ভাইদের মতো সামাজিক উন্নয়ন কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। তিনি পারিবারিক ভাবে প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানসমূহে আর্থিক অনুদান ছাড়াও কমলগঞ্জ দাখিল মাদ্রাসায় নিয়মিত আর্থিক অনুদান দিয়ে আসছেন। বিলেতে প্রতিষ্ঠিত কমলগঞ্জ উপজেলা ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদক, পরবর্তীতে কোষাধ্যক্ষ ও বর্তমানে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে থাকা জনাব সালাম ব্যক্তি জীবনে বিবাহিত।

তিনি স্ত্রী শাহরিন আক্তার চৌধুরী ও একমাত্র পুত্র ইউজার্সিফ মোহাম্মদ বিন সারওয়ার কে নিয়ে লন্ডনের স্টেপনীগ্রীন এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করেন।

শেয়ার করুন