গোয়াইনঘাটে সিএনজির অতিরিক্ত ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে এলাকাবাসীর স্মারকলিপি প্রদান

তানজিল হোসেন, গোয়াইনঘাট:

সিলেটের গোয়াইনঘাটে হঠাৎ করে সিএনজি অটোরিকশার অতিরিক্ত ভাড়া বৃদ্ধি করে যাত্রী হয়রানী করছে কতিপয় সিএনজি চালকরা। এসব হয়রানি বন্ধ করতে এলাকার ভুক্তভোগী যাত্রীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। গত ৪ঠা ডিসেম্বর উপজেলার ডৌবাড়ি ইউনিয়নের প্রায় অর্ধশত লোকের স্বাক্ষরিত স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, কতিপয় স্বার্থন্বেষী লোকজন তাদের স্বার্থে হঠাৎ করে যাত্রী প্রতি ভাড়া ১০ টাকা বাড়িয়ে দেয়। উপজেলার হাকুর বাজার থেকে গোয়াইনঘাট পর্যন্ত মাত্র ৭ কিঃ মিঃ রাস্তার ভাড়া ছিলো ২০ টাকা। যা হঠাৎ করে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ১০ টাকা বাড়িয়ে ৩০ টাকা করা হয়েছে। হঠাৎ ভাড়া বৃদ্ধিতে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে এলাকায়। যার ফলে চালকের সাথে যাত্রীদের বাকবিতন্ডায় আইনশৃঙ্খলা অবনতির আশঙ্কা রয়েছে। নির্বাচনকে পুঁজি করে শিক্ষার্থী যাত্রী সাধারণের কথা চিন্তা না করে ভাড়া বাড়ানো হয়েছে বলে স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়। এ বিষয়টি জরুরী ভিত্তিতে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে এলাকাবাসী প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। গোয়াইনঘাট সিএনজি উপ-পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সাইদুর রহমান জানান, হাকুর বাজারের ৭/৮ মৌজার ময়-মুরুব্বিদের সাথে আলোচনা করে আমরা দুই-তিনটি বৈঠকের মাধ্যমে গত শুক্রবার ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ২০০৬ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত কোন ভাড়া বৃদ্ধি হয় নাই। তিনি বলেন, বর্তমান বাজারে গাড়ির পার্টস সহ জিনিসপত্রের যে দাম, একজন গাড়ি চালকের জীবন-জীবিকার বিষয়টিও চিন্তায় রাখতে হবে। সেই তুলনায় ৩০ টাকা কোন অতিরিক্ত ভাড়া নয় বলে তিনি জানান। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) তাহমিলুর রহমান বলেন, স্মারকলিপি আমি এখনো দেখিনি। তদন্ত করে প্রমাণ সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। উল্লেখ্য, গত ৭ নভেম্বর উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়নের পীরের বাজার এলাকায় ৫ টাকা ভাড়ার দ্বন্দ্বে এক এক যাত্রী অটো চালকের হাতে খুন হন। এর আগে সতি গ্রামের এক সিএনজি চালক ভাড়া নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে প্রাণ হারিয়েছেন।

শেয়ার করুন