সিলেটে পুলিশি হেফাজতে মৃত্যু বিচারের দাবিতে সড়ক অবরোধ, বিক্ষোভ, ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিলেটে পুলিশ হেফাজতে রায়হান আহমদের হত্যার বিচার দাবিতে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের পাশে নগরের আখালিয়ায় মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন নিহতের স্বজন ও এলাকাবাসী। সোমবার বিকেলে।
সিলেটে পুলিশ হেফাজতে রায়হান আহমদের হত্যার বিচার দাবিতে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের পাশে নগরের আখালিয়ায় মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন নিহতের স্বজন ও এলাকাবাসী। সোমবার বিকেলে। প্রথম আলো
সিলেটে পুলিশি হেফাজতে মারা যাওয়া মো. রায়হান আহমদ (৩৪) হত্যার বিচার দাবিতে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে নগরীর আখালিয়ায় বিক্ষোভ করেছেন এলাকাবাসী।

সোমবার বেলা তিনটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত বিক্ষোভ হয়। এলাকাবাসীর উদ্যোগে বিক্ষোভে নিহত রায়হানের মা সালমা বেগমসহ পরিবারের সদস্যরাও একাত্ম হন।

সড়ক অবরোধকালে ‘রায়হান হত্যার বিচার চাই’ ব্যানারসহ হাতে লেখা নানা রকম পোস্টার ও ফেস্টুন প্রদর্শন করে মানববন্ধন করা হয়। সিলেট সিটি করপোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মখলিছুর রহমান কামরানের সভাপতিত্বে ও নিহারিপাড়া সমাজকল্যাণ সমিতির সদস্য আনাস চৌধুরী ও জয়নাল আহমেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন, নিহারিপাড়া ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিজবাউর রহমান, বৃহত্তর মদিনা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমদ, সাবেক কোষাধ্যক্ষ জব্বার শাহী, নিহারিপাড়া সমাজকল্যাণ সংস্থার মো. মঈনুল ইসলাম, আবদুর রহমান, গোলাম রব্বানী, রাসেল আহমদ প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে মাত্র ১০ হাজার টাকার জন্য নৃশংসভাবে নির্যাতন করে রায়হানকে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি পুলিশ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে নানা ধরনের কথা ছড়াচ্ছে। পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনকারী ব্যক্তিদের পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ জানে। মামলা করা হলেও নির্যাতনকারীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আসামি চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার করা না হলে কর্মসূচি ঘোষণা করে আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দেন তাঁরা।

মানববন্ধনের একপর্যায়ে রায়হানের মা সালমা বেগম পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বিক্ষোভে সামিল হন। তিনি সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কে বসে অনেকটা আহাজারি করে সালমা বলেন, ‘আমার ছেলে ছিনতাইকারী বা অপরাধী নয় । তাকে পুলিশ ধরে নিয়ে গিয়ে বিনা দোষে রাতভর নির্যাতন করে হত্যা করেছে । পুলিশ তো মানুষের রক্ষক, কিন্তু সেই পুলিশই আজ ভক্ষক। আমার ছেলেকে হত্যা করে তা–ই প্রমাণ করেছে। টাকার জন্য পুলিশ আমার ছেলেকে হত্যা করেছে।’

শেয়ার করুন